টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

উখিয়ায় গ্রামাঞ্চলে পরিবর্তনের হাওয়া

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ২ অক্টোবর, ২০১৩
  • ১১৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম বশর চৌধুরী, উখিয়া :::::উখিয়া উপজেলার গ্রামাঞ্চলে পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে। এখানকার গ্রামাঞ্চল থেকে মৌলবাদী চিন্তা, কু-সংস্কার, অন্ধ বিশ্বাস ও কুপমন্ডুকতা ঝেটিয়ে বসেছে ধীরে ধীরে। গ্রামের অশিতি নারী পুরুষ ও যুবক যুবতীরা বিভিন্ন প্রশিণ কেন্দ্র ও এনজিও পরিচালিত স্কুলে গিয়ে শিা গ্রহন সহ বিভিন্ন উপায়ে নিজেকে শিতি করে তোলার চেষ্টা করছে। অভিবাবকদের মাঝে ব্যাপক সচেতনতা ফিরে এসেছে। তারা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কে একটি শিতি সমাজ উপহার দেওয়ার জন্য ছেলে মেয়েদের নিয়মিত বিদ্যালয় মুখী করাচ্ছেন। সর্বত্র সচেতনতা ফিরে আসায় সাধারণ বসতীদের গরীবানা হাল কেটে যাচ্ছে ক্রমান্বয়ে। আগের দিনের মত বসত ঘরের করুন দশা খুবই কম চোখে পড়ছে। গ্রামে গ্রামে প্রতিদিন নতুন নতুন টিনের ঘর ও পাকা দালান হচ্ছে। ১০/২০ গ্রাম ঘুরে ছনের চাউনি ঘর সহসেই চোখে পড়েনা। একবারে হত দরিদ্র পরিবারও এখন টিনের চাউনি ঘরে বসবাস করছে। এদর মধ্যে গরীব শ্রেনীর অনেকেই বিভিন্ন এনজিও সংস্থা থেকে ঋণ নিয়ে টিনের ঘর করছে। গ্রামে স্বাস্থ্য ও পরিবেশ সচেতনতা বেড়েছে। এখন প্রায় প্রতিটি ঘরে ঘরে স্যানিটারী ল্যাট্রিন রয়েছে। গ্রাম থেকে বিনোদন উৎসবে আগের মত পালা গান, জারী গান, পুথি পড়া, অনুষ্টান হারিয়ে গেছে, রেডিওর কদর ও নেই। সেখানে ঘরে ঘরে টিভি, ভিসিআর, ভিসিডি, মোবাইল ফোন, ডিস এন্টেনা জায়গা করে নিয়েছে।  গ্রামে সমাজবদ্ধ জীবন ঠিকই আছে। সামাজিক শালিস বিচার হয়ে থাকে। তবে সমাজপতিদের অহেতুক খবরদারী কমেছে। সমাজপতিদের বৈটকখানা ও কাচারী ঘরের অস্থিত্ব দিন দিন বিলিন হয়ে যাচ্ছে। গ্রামের মেয়েরাও এখন পুরুষদের মত মাঠে কাজ করে। কৃষি পেশায় আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েছে। গ্রামে বসতী পরিবারের মধ্যে শতকরা হিসাবে ৯০ ভাগই কৃষক পরিবার। কৃষিকাজ থেকে তাদের সংসার চলে। তবে এদের মধ্যে মধ্যবিত্ত কৃষক পরিবারের সংখ্যা বেশি। শতকরা ১০ ভাগ হল ধনী কৃষক। কৃষি কাজ থেকে তাদের সংসার চলে। গ্রামের নিম্ন, মধ্যবিত্ত শ্রেনীর শতকরা ১০/১৫ ভাগ মানুষ নিজেদের জমি ছাড়াও অন্যদের জমিতে কাজ করে। এছাড়াও একবারে জমি জমা নেই এমন লোকজন সংসার চালায় নান পেশার কাজ করে। বেকার সমস্যা তেমন নেই। এ উপজেলার গ্রাম গুলোতে এখনো আদি নিয়মের সমাজবদ্ধ বসবাস চালু আছে। ওই নিয়মে ৩০/৪০টি পরিবার নিয়ে একেকটি সমাজ গঠন এবং প্রতিটি সমাজে ২ থেকে ৪ জন সমাজপতি (সর্দার) রয়েছে। গ্রামে সমাজবদ্ধ জীবনে বিয়ে অনুষ্টান সহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মী অনুষ্টান সামাজিক দায়িত্ববোধ থেকে সকলে মিলে মিশে করে থাকে। ওই সমাজ ব্যবস্থায় ধর্মীয় আচার পালনে উপদেশ দেওয়া হয়। তবে গ্রামে এখন আর আগের মত শালিস বিচার হয়না। সরকারী আইন, প্রশাসন বরাবর সবাই বিচারপ্রার্থী হয়ে থাকে।
উখিয়ায় গ্রামাঞ্চলে পরিবর্তনের হাওয়া
এম বশর চৌধুরী, উখিয়া :::::উখিয়া উপজেলার গ্রামাঞ্চলে পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে। এখানকার গ্রামাঞ্চল থেকে মৌলবাদী চিন্তা, কু-সংস্কার, অন্ধ বিশ্বাস ও কুপমন্ডুকতা ঝেটিয়ে বসেছে ধীরে ধীরে। গ্রামের অশিতি নারী পুরুষ ও যুবক যুবতীরা বিভিন্ন প্রশিণ কেন্দ্র ও এনজিও পরিচালিত স্কুলে গিয়ে শিা গ্রহন সহ বিভিন্ন উপায়ে নিজেকে শিতি করে তোলার চেষ্টা করছে। অভিবাবকদের মাঝে ব্যাপক সচেতনতা ফিরে এসেছে। তারা ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কে একটি শিতি সমাজ উপহার দেওয়ার জন্য ছেলে মেয়েদের নিয়মিত বিদ্যালয় মুখী করাচ্ছেন। সর্বত্র সচেতনতা ফিরে আসায় সাধারণ বসতীদের গরীবানা হাল কেটে যাচ্ছে ক্রমান্বয়ে। আগের দিনের মত বসত ঘরের করুন দশা খুবই কম চোখে পড়ছে। গ্রামে গ্রামে প্রতিদিন নতুন নতুন টিনের ঘর ও পাকা দালান হচ্ছে। ১০/২০ গ্রাম ঘুরে ছনের চাউনি ঘর সহসেই চোখে পড়েনা। একবারে হত দরিদ্র পরিবারও এখন টিনের চাউনি ঘরে বসবাস করছে। এদর মধ্যে গরীব শ্রেনীর অনেকেই বিভিন্ন এনজিও সংস্থা থেকে ঋণ নিয়ে টিনের ঘর করছে। গ্রামে স্বাস্থ্য ও পরিবেশ সচেতনতা বেড়েছে। এখন প্রায় প্রতিটি ঘরে ঘরে স্যানিটারী ল্যাট্রিন রয়েছে। গ্রাম থেকে বিনোদন উৎসবে আগের মত পালা গান, জারী গান, পুথি পড়া, অনুষ্টান হারিয়ে গেছে, রেডিওর কদর ও নেই। সেখানে ঘরে ঘরে টিভি, ভিসিআর, ভিসিডি, মোবাইল ফোন, ডিস এন্টেনা জায়গা করে নিয়েছে।  গ্রামে সমাজবদ্ধ জীবন ঠিকই আছে। সামাজিক শালিস বিচার হয়ে থাকে। তবে সমাজপতিদের অহেতুক খবরদারী কমেছে। সমাজপতিদের বৈটকখানা ও কাচারী ঘরের অস্থিত্ব দিন দিন বিলিন হয়ে যাচ্ছে। গ্রামের মেয়েরাও এখন পুরুষদের মত মাঠে কাজ করে। কৃষি পেশায় আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েছে। গ্রামে বসতী পরিবারের মধ্যে শতকরা হিসাবে ৯০ ভাগই কৃষক পরিবার। কৃষিকাজ থেকে তাদের সংসার চলে। তবে এদের মধ্যে মধ্যবিত্ত কৃষক পরিবারের সংখ্যা বেশি। শতকরা ১০ ভাগ হল ধনী কৃষক। কৃষি কাজ থেকে তাদের সংসার চলে। গ্রামের নিম্ন, মধ্যবিত্ত শ্রেনীর শতকরা ১০/১৫ ভাগ মানুষ নিজেদের জমি ছাড়াও অন্যদের জমিতে কাজ করে। এছাড়াও একবারে জমি জমা নেই এমন লোকজন সংসার চালায় নান পেশার কাজ করে। বেকার সমস্যা তেমন নেই। এ উপজেলার গ্রাম গুলোতে এখনো আদি নিয়মের সমাজবদ্ধ বসবাস চালু আছে। ওই নিয়মে ৩০/৪০টি পরিবার নিয়ে একেকটি সমাজ গঠন এবং প্রতিটি সমাজে ২ থেকে ৪ জন সমাজপতি (সর্দার) রয়েছে। গ্রামে সমাজবদ্ধ জীবনে বিয়ে অনুষ্টান সহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মী অনুষ্টান সামাজিক দায়িত্ববোধ থেকে সকলে মিলে মিশে করে থাকে। ওই সমাজ ব্যবস্থায় ধর্মীয় আচার পালনে উপদেশ দেওয়া হয়। তবে গ্রামে এখন আর আগের মত শালিস বিচার হয়না। সরকারী আইন, প্রশাসন বরাবর সবাই বিচারপ্রার্থী হয়ে থাকে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT