টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের রোহিঙ্গাদের এনআইডি কেলেঙ্কারি : নির্বাচন কমিশনের পরিচালকের বিরুদ্ধে দুপুরে মামলা, বিকালে দুদক কর্মকর্তা বদলি সড়কের কাজ শেষ হতে না হতেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং! আপনি বুদ্ধিমান কি না জেনে নিন ৫ লক্ষণে ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশি ভোটার: নিবন্ধিত রোহিঙ্গাও ভোটার! ইসি পরিচালকসহ ১১ জন আসামি

ঈদগড়ে চাঞ্চল্যকর খুনের মামলা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার ষড়যন্ত্র

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৩
  • ১১৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

ইমাম খাইর, কক্সবাজার। কক্সবাজারের রামু উপজেলার ঈদগড়ের চাঞ্চল্যকর লায়লা হত্যা মামলা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে ষড়যন্ত্রে নেমেছে একটি চক্র। এতে মামলা তদন্তে সুষ্টু প্রক্রিয়ায় প্রভাব পড়বে মনে করছে বাদিপক্ষ ও সচেতনমহল। সুত্র জানায়, গত ২৯ জুলাই ঈদগড়ের হাসনাকাটা নামক এলাকায় রাত অনুমান ২ টার দিকে ওই এলাকার কবির  আহমদের স্ত্রী লায়লা বেগম (৬২) নামে এক বৃদ্ধাকে নির্মমভাবে খুন করে দূর্বত্তরা। এতে স্বামী কবির আহমদ ৩১ জুলাই রামু থানায়  হত্যা মামলা করেন। মামলা নং-৩২। এ মামলায় এজাহারভুক্ত আসামী করা হয় ১০ জনকে। এর বাইরে সন্দেহভাজন রাখা হয় আরো অন্তত ৫/৬ জনকে। অভিযোগ উঠেছে, অজ্ঞাতনামার সুযোগকে ব্যবহার করে ইতিমধ্যে এলাকার একটি প্রভাবশালী চিহ্নিত চক্র প্রকৃত ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের পরোক্ষ সহায়তায় অপ-তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। এতে করে ঘটনার মূল হুতারা পার পেয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বাদিপক্ষের। স্থানীয়দের বক্তব্য থেকে জানা গেছে, ওই হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ১০ নং আসামী শাহাবুদ্দিন ২০ জুলাই তার প্রতিপক্ষ ধরণের  কিছু ব্যক্তিদের নাম উল্লেখসহ কিছু কিচ্ছা কাহিনী লিখে স্থানীয় চেয়ারম্যানের নিকট একটি আবেদন দিয়েছে। যদিওবা এটি তার পক্ষ থেকে দেয়া না দেয়া নিয়ে এলাকাবাসি ও বাদিপক্ষের সন্দেহ রয়েছে প্রচুর। দরখাস্তটিতে যে কয়জনকে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত দেখানো হয়েছে সেখানে এমন লোকের নামও রয়েছে, যারা ঘটনার সাথে মোটেও জড়িত নন। এটিকে মামলার সঠিক প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত করার নতুন কৌশল মনে করছেন মামলার বাদি কবির আহমদ। তিনি জানান, হত্যাকান্ডে জড়িতদের নাম ঠিকানা উল্লেখ করে থানায় মামলা করা হয়েছে। তবে পরবর্তীতে আরো ৪ জনের সম্পৃক্ততার তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের গ্রেফতার করা হলে আরো অনেক তথ্য পাওয়া যাবে। বাদির ছেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র সেলিম বাহাদুর জানান, ভাড়াটিয়া কিলার এনে তার মা’কে খুন করা হয়েছে। এতে স্থানীয় অনেক প্রভাবশালী লোক জড়িত। এটি নিয়ে রাজনীতির সুযোগ নেই। সঠিক সময়ে ঘটনায় জড়িত অন্যান্যদের নাম ঠিকানা প্রকাশ করা হবে। তবে এতে কাউকে হয়রানি করা হবেনা এবং নেপথ্যে থাকা লোকদেরও বাদ দেয়া হবেনা। মামলার এজাহারে নাম না থাকলেও চক্রান্তকারীদের হয়রানির শিকার কুদ্দুস মিয়ার জুম এলাকার আমির হামজার পুত্র আবুল কাশেম জানান, সে ক্ষুদ্র চাকরীজীবি। ঘটনার দিন সে কর্মস্থলেই ছিল। এরপরও কিছু স্থানীয় কু-চক্রি তাকে জোরপূর্বক ঘটনায় জড়িয়ে হয়রানি করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এতে সে জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছে। এনিয়ে ভূক্তভোগি কাশেম প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়ে আবেদনও করছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমদ ভূট্টো জানান, ঘটনায় নেপথ্যে থাকা আরো অন্তত ৬ জনের তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের নাম এজাহারে না থাকলেও পরবর্তীতে অন্তর্ভূক্ত করা হবে।

এদিকে মামলার ৭নং এজাহারভুক্ত আসামী নুরুল আমিনকে ঈদগাঁও ষ্টেশন থেকে শনিবার বিকাল ৪ টার দিকে গ্রেফতার করেছে রামু থানা পুলিশ। তার বিরুদ্ধে রামু থানায় ২টি হত্যা মামলা রয়েছে। তাকে সঠিক জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসবে ঘটনার নেপথ্যে থাকা অনেক অজানা তথ্য। সে এ মামলা ছাড়াও জিআর ১/২০১০ এর ওয়ারেন্টভুক্ত পলাতক আসামী বলে জানিয়েছে থানা পুলিশ।

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT