টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

ঈদগাও লেখক সোসাইটি (ইএলএস) পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৩
  • ১৬৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম. আবুহেনা সাগর, ঈদগাঁও :::কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও’র একঝাক সাহিত্যমোদীদের সংগঠন লেখক সোসাইটি (ইএলএস),র পৃর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন হয় ১২ই অক্টোবর প্রেসকাব প্রাঙ্গনে সোসাইটির সভাপতি রুবেল উদ্দীনের সভাপতিত্বে এক সভায়। উক্ত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-জেলা লেখক সোসাইটির সাবেক সভাপতি ও সাংবাদিক এম আবু হেনা সাগর। অনুমোদনকৃত নবগঠিত পৃর্ণাঙ্গ কমিটির সভাপতি এস এম রুবেল, সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক, সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান, যুগ্ন সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ রশিদ, সাহিত্য সম্পাদক ইব্রাহিম ভুট্টো, সিনিয়র সদস্য সুকান্ত দাশ প্রিয়লাল,সদস্য সাইদুল করিম, ফায়সাল, জসিম উদ্দীন, আব্দুল্লাহ, আসমাউল হোসনা, লুৎফা আহম্মেদ, রায়হান, আল মুবিন, মোহাম্মদ নুর, শাহ আলম, আব্দু রহমান, সাজেদ ও রুবেল মিয়া। উক্ত কমিটি এক বছর পর্যন্ত বলবৎ থাকবে। এবং অনুমোদনকৃত কমিটির প থেকে আগামী ১৮ই অক্টোবর ঈদ পূর্নমিলনী করার সিদ্বান্ত গৃহিত হয়।

 

ঈদগাঁওতে কোরবানীর মসল্লা বাজারে আগুন: ক্রেতাদের নাগালের বাইরে এম. আবুহেনা সাগর, ঈদগাঁও ১৩/১০/২০১৩ইং। কক্সবাজার সদর উপজেলার বৃহত্তম ঈদগাঁও বাজারে এবারের কোরবানী মসল্লা বাজারে আগুন লেগেছে। এতে করে ক্রেতাদের ক্রয় মতা নাগালের বাইরে চলে গেছে। এক দিকে কোরবানী পশুর হাতে চড়া দামে পশু কিনতে হচ্ছে, অন্যদিকে সেই কোরবানী পশুর রান্নার কাজে ব্যবহৃত মসল্লাদী কিনতে গিয়ে সাধারণ ক্রেতা সমাজ প্রতিণে, প্রতি মহুর্তে হিমশিম খাচ্ছে। এ দু’সমস্যা থেকে কবে মুক্তিপাবে সে চিন্তায় মগ্ন রয়েছে অনেকে। গতকাল ১৩ অক্টোবর সকালে ঈদগাঁও বাজারের তরকারী ও মসল্লা বাজার ঘুরে জানা যায় যে, কোরবানী পশু রান্নার কাজে ব্যবহৃত মসল্লাদীর মধ্যে রয়েছে- গোল মরিচ প্রতি কেজি এক হাজার, লং কেজি ষোল শত, এলাচি প্রতি কেজি বার শত, ডাল-চিনি দুইশত, জিরা প্রতি কেজি চারশত, মিড়া জিরা প্রতি কেজি দুইশত, তেজ পাতা প্রতি কেজি দেড়শত, মরিচ (পিশানো) প্রতি কেজি একশত আশি, হলুদ প্রতি কেজি একশত দশ, পেঁয়াজ প্রতি কেজি একশত, আদা প্রতি কেজি একশত বিশ, রসুন প্রতি কেজি ষাট, ধন্যা ও বাহর প্রতি কেজি সত্তর টাকা বিক্রিত হচ্ছে। আবার অনেক অনেক দোকানে এক এক দামেও বিক্রয় হতে যাচ্ছে। এই নিয়ে ক্রেতা সাধারণের মাঝে ২/৩ ধরণের দাম নিয়ে বিপাকে পড়তে দেখা যায়। সবমিলিয়ে এবারের মসল্লা বাজারের ক্রেতাদের নাগালের বাইরে সবকিছু। তবুও বাজারের ক্রেতাদের ভিড় আর ভিড় লনীয়।  ইসলামাবাদে দলিল বাতিলের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা এম. আবুহেনা সাগর, ঈদগাঁও ১৩/১০/২০১৩ইং। কক্সবাজার সদর উপজেলার ইসলামাবাদে দলিল বাতিলের বিরুদ্ধে ভাইয়ের বিরুদ্ধে অপর ভাইয়েরা আদালতে মামলা দায়ের করার খবর পাওয়া গেছে। জানা যায়, ইসলামাবাদ ইউনিয়নের পশ্চিম বোয়ালখালীর মৃত আমির হোসেনের পুত্র মৃত নজির আহমদের ১৮/৮৬/৭৪/৭৫ দাগের ৪২.৫২ শতক জায়গা রয়েছে। সেখান থেকে নজির আহমদের পুত্র আবুল কালামকে ১৮/৮৬ দাগ হতে ২০শতক জায়গা দান পত্র করে। এরপর ৭৪/৭৫ দাগ হতে ২০১১ সালের ২৯ এপ্রিল ৪ কড়া জমি আবুল কাশেমের পুত্রদ্বয় মঈনুল ইসলাম ও শাহেদুল ইসলামকে দান পত্র করে। অন্যদিকে মৃত নজির আহমদ তার পুত্র সাদ্দাম ও মনছুর কে ৪ কড়া জমি দান পত্র করে। একই জমি জোর পূর্বক ভাবে পিতার অজ্ঞাত অবস্থায় পরিবারের লোকজনদের অজান্তে পিতাকে চিকিৎসা উদ্দেশ্যে নিয়ে ঐ জমি থেকে ফের ৪কড়া জমির দলিল সৃজন করে। এ দলিল বাতিলের পে ২৬৪/২০১৩ইং আদালতে সাঈদ মাহমুদ সাদ্দাম গংয়ের ১৪জন বাদী হয়ে তাদেরই ভাই আবুল কালামের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে। এব্যাপারে সাদ্দামগংয়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে, তারা মামলা নিষ্পতি না হওয়ার পর্যন্ত ঐ জমি কাউকে ক্রয় না করার জন্য আহবান জানান।  ————————————————-

ঈদগাঁওতে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শারদীয় দূর্গোৎসবে পূজারীদের ঢল: নাচে গানে উৎফুল্ল তরুন-তরুনীরা এম. আবুহেনা সাগর, ঈদগাঁও ১৩/১০/২০১৩ইং। দিন বদলায়, বদলে যায় অনেক কিছুই, কিন্তু আজও ঢাকের শব্দে ছড়ায় মায়ের পূজা হলো শুরুর স্লোগানকে ধারণ করে নাচে গানে মহা উৎসাহ-উদ্দীপনা আর ধুমধামের মধ্য দিয়ে শেষ হতে চলছে শারদীয় দূগোৎসব। প্রতি বৎসরের ন্যায় এই বৎসরও সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্ববৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপূজা ডজনাধিক মন্ডপে ঝাকজমকপূর্ন পরিবেশে অনুষ্টিত হয়েছে এই উৎসব। এই নিয়ে মহা খুশিতে বিভিন্ন  মন্ডপে গানের তালে তালে নেচে নেচে উৎফুল্ল হতে দেখা যাচ্ছে তরুন-তরুনী সহ সববয়সী লোকজনদেরকে। এই ল্েয বৃহত্তর ঈদগাঁও তথা ছয় ইউনিয়নের ১৬টি প্রতিমায় চলছে পূজা। সব মিলিয়ে এ ধর্মালম্বীদের বৃহত্তম এই শারদীয় পূজাকে ঘিরে অন্য রকম আমেজ দেখা দিয়েছে। অন্যদিকে- এ দুর্গাৎসব জাতি, ধর্ম, বর্ণ নিবিশেষে সৌভাতৃত্বের মহামিলনের উৎসব। পরাস্ত অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে শুভ শক্তির আনন্দের এই উৎসব। অপর দিকে, পৃথক পৃথক ভাবে ঈদগাও’র প্রধান কেন্দ্রীয় কালী মন্দিরসহ বিভিন্ন মন্ডপে কক্সবাজার সদর রামু আসনের সংসদ সদস্য লুৎফুর রহমান কাজল, জেলা প্রসাশক মোহাম্মদ রুহুল আমিন ও আজকের কক্সবাজারের প্রতিনিধি এম আবুহেনা সাগরের নেতৃত্বে সনাতন ধর্মালম্বীদের শারদীয় উৎসবের বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করেন। এসময় স্ব স্ব পূজা মন্ডপের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT