টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

ঈদগাঁওয়ে ঈমামের থেকে ইয়াবা উদ্ধার নিয়ে লুকোচুরির ঘটনায় তোলপাড়

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ৫ অক্টোবর, ২০১৩
  • ৯৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

জাহাঙ্গীর বাঙ্গালী, ঈদগাঁও::::Image eidgahকক্সবাজার সদরের ঈদগাঁওয়ে ঈমামের ক থেকে ইয়াবা উদ্ধার নিয়ে লুকোচুরির ঘটনায় তোলপাড়া সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় প্রতিবাদকারীদের বিভিন্ন মামলায় জড়ানোর হুমকি দিয়ে মূলহুতাদের আড়াল করার চেষ্টায় এলাকাবাসীর মাঝে ােভ বিরাজ করছে। এদিকে উক্ত ঘটনার বিষয়ে পিলেচমকানো তথ্য বেরিয়ে আসায় পুরো এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, বর্ণিত ইউনিয়নের দণি মেহেরঘোনা এলাকার কেয়ামনতলী জামে মসজিদের ঈমামের ক থেকে এলাকাবাসীর সহযোগীতায় গত ২৬ সেপ্টেম্বর ৩০০ পিচ ইয়াবা উদ্ধার করে স্থানীয় পুলিশ। কাউকে গ্রেফতার করতে না পারলেও এলাকার এই মাদক সামগ্রী উদ্ধারে সহযোগিতাকারী যুবসমাজকে অপরাধী সাজাতে উঠে পড়ে লেগেছে একটি মহল। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক, এলাকার অনেক প্রবীন ব্যক্তি জানান, পার্শ্ববর্তী ইউনিয়ন চৌফলদন্ডী খামার পাড়া এলাকার বাসিন্দা মাওলানা কলিম উল্লাহকে বিগত ৩ বৎসর আগে এলাকার মসজিদে ঈমাম হিসেবে নিয়োগ দেয় কর্তৃপ। সেই থেকে উক্ত ঈমাম সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করে আসছিল। সম্প্রতি এলাকার প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধিসহ কয়েক যুবক ঈমামের সাথে দহরম-মহরম গড়ে তুলে। এলাকার জনপ্রতিনিধি হওয়ায় তারা এ বিষয়কে কোন ভাবেই সন্দেহের চোখে দেখেনি। কিন্তু হঠাৎ করে ওই দিন ঈমামের ক থেকে ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনা নিয়ে স্তম্বিত হয়েছেন তারা। দিন দুপুরের ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো এলাকার ধর্মভিরু যুবসমাজসহ এলাকাবাসীকে জড়ানোর ষড়যন্ত্র নিয়ে তাদের মাঝে ােভ বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে অভিযোক্ত ব্যক্তি মাওলানা কলিম উল্লাহর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, বছর খানেক আগে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সাথে তার সখ্যতা গড়ে উঠে। এরপর থেকে প্রায় সময় উক্ত জনপ্রতিনিধি তার বন্ধু বান্ধব নিয়ে ঈমামের কে আড্ডা দিত। এক পর্যায়ে মায়ানমার এলাকার ২ ব্যক্তিকে তার সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়ে তাদের সাথে সার্বনিক যোগাযোগ রাখার পরামর্শ দেয় এই জনপ্রতিনিধি। এরপরই মাদক ব্যবসার লোভ দেখিয়ে তার কে ইয়াবাসহ বিভিন্ন মালামাল রাখার চাপ প্রয়োগ করে সে। ঈমাম অপারগতা প্রকাশ করলেও তাকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখানো হয়। এক পর্যায়ে নিরুপায় হয়ে ঈমাম সাহেব এ সমস্ত জিনিস রাখা শুরু করে। সুবিধামত সময়ে উক্ত ইয়াবা তার ক থেকে বিভিন্ন জায়গায় চালান দিত উক্ত জনপ্রতিনিধি। অচেনা লোকজন ও জনপ্রতিনিধির ঘন ঘন উপস্থিতি সম্প্রতি এলাকাবাসীর মাঝে সন্দেহ দেখা দিলে যুবসমাজ তাকে উল্লেখিত তারিখে ইয়াবাসহ হাতে নাতে ধরে। পরেই এ জনপ্রতিনিধিকে ঈমাম সাহেব খবর দিলে তিনি ধ্র“ত এসে এলাকাবাসীর তোপের মুখ থেকে তাকে উদ্ধার করে পালানোর সুযোগ করে দেয়। এতে ঈমামের কোন দোষ নেই বলে এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন। দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও উক্ত ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনাটিকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে একটি প্রভাবশালী মহল চক্রান্ত শুরু করায় এলাকাবাসীর মাঝে চরম ােভ বিরাজ করছে। যে কোন মুহুর্তে এ ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে রক্তয়ী সংঘর্ষের মত ঘটনার আশংকা করছেন সচেতন মহল। এই স্পর্শকাতর জায়গা থেকে মাদক উদ্ধারের বিষয় ও এ ঘটনা নিয়ে নীরিহ যুবসমাজদের মামলায় জড়ানোর চক্রান্ত রোধ করতে সুষ্ট তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নিতে উর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তপে কামনা করেছেন মেহেরঘোনা এলাকাবাসী।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT