টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

ঈদগাঁও’র গৃহবধুর মৃত্যু রহস্যে, ৬ দিনেও উদঘাটন হয়নি

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৩
  • ১১৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম. আবুহেনা সাগর, ঈদগাঁও ###ঈদগাঁও’র দুবাই প্রবাসীর নিহত দ্বিতীয় স্ত্রীর(গৃহবধু) মৃত্যু রহস্যে,৬ দিনেও উদঘাটন হয়নি। আসলে ঘটনাটি কি আত্মহত্যা না অন্য কিছু এই নিয়ে চলছে নানা কথাবার্তা। লাশ ময়না তদন্তের পর পৈত্রিক বাড়ী পোকখালীর পার্শ্ববর্তী মিয়াজী পাড়া কবর স্থানে দাফন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে। এমনকি ময়না তদন্ত সম্পন্নের পর স্বামী আত্মগোপনে রয়েছে বলে জানা যায়। এদিকে নিহতের তিন মাসের শিশু পুত্র সহ চার সন্তান বর্তমানে প্রথম স্ত্রীর তত্ত্বাবধানে রয়েছে বলে নানা সূত্রে প্রকাশ। জানা যায়, ১৮ই আগষ্ট সকালে ঈদগাঁও ইউনিয়নের দণি মাইজপাড়ায় এক গৃহবধুর নিহতের ঘটনা ঘটে। দুবাই প্রবাসী নুরুল আলম দীর্ঘদিন পর প্রথম স্ত্রী নিয়ে দুবাই হতে বেড়াতে আসার মাত্র এক রাতের ব্যবধানের পরদিন সকাল নয়টার পর পরই প্রকাশ হয় যে, দ্বিতীয় স্ত্রী ছফুরা আক্তার বিউটি মারা গেছে। একইদিন ১৮ আগষ্ট সকালে নিজবাড়ী থেকে লাশটি উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রকাশ, ঐদিনই সকাল সাত টার দিকে নিহত বিউটি বাসার রুটি তৈরী করছে। এমতাবস্থায় সে তার কন্যা ফাতেমাকে স্কুল যাওয়ার জন্য তৈরী হতে বলে। এসময় পিতা তাকে স্কুলে না যেতে বলে, এই নিয়ে  স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ও ঘটে। প্রথম স্ত্রী গোলবাহারের মতে, বিউটি তার কে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। কিন্তু স্থানীয় লোকজন সহ সচেতন মহল এই পর্যন্ত আত্মহত্যার বিষয়টি মেনে নিতে পারছে না। সকলের দাবী, প্রকৃত তথ্য বের করা হোক। নুরুল আলমের নিকটাত্মীয় ও ঘনিষ্ট একজন জানান, মৃত্যুর সঠিক কারণ সম্পর্কে তিনি অবগত নয়। তবে স্থানীয় এক অপর ব্যক্তির মতে, এটা নিঃসন্দেহে হত্যাকান্ড। নিহতের কন্যা ফাতেমা নূরী মায়ের দাফন কালীন নানার বাড়ীতে উল্লেখ করে তার মা কে মারধর করে হত্যা করা হয়েছে। দাফন শেষ হতে না হতেই তারাহুরা করে তাকে নিয়ে আসা হয় পিতার আশ্রয়ে। নিহতের ভাই জসিম হতভাগা কণ্ঠে বলেন, আবার বোনকে শারীরিক নির্যাতন ও তলপেটে লাথি মেরে নির্মাম ভাবে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আরও উল্লেখ করেন, ঘটনার পূর্বরাত প্রায় সাড়ে বারটা দিকে আমার মোবাইল নাম্বারের নিহত বোন বিউটির বেশ কয়েকটি কল আসে। তখন ঘুমান্ত অবস্থায় তার কল রিসিভ করার সম্ভব হয়নি। পরদিন সকালে তার মোবাইলে রিং করে কোন সাড়া না পাওয়ায় বাড়ীর পার্শ্ববর্তী আত্মীয় স্বজনের সাথে যোগাযোগ করে জানতে পারি আমার বোন মারা গেছে এবং তাকে কক্সবাজারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এব্যাপারে স্বামী নুরুল আলম আত্ম গোপনে থাকায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। অপরদিকে তার ছোট ভাই নূর আহমদের সাথে কথা হলে তিনি জানান, মামলা ছাড়া দু’পে বসে মিমাংশা করার কথা জানান। অন্যদিকে এলাকার এক সচেতন যুবকের মতে, পত্রিকায় লিখে কি লাভ হবে, দুপে বসে মিমাংসা করে ফেলবে। এদিকে মোটা অর্থের বিনিময়ে ঘটনাটিকে আপোষ রফার প্রাণপর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে এক সূত্রে প্রকাশ। ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জের মতে, আমি কিছু বলতে পারব না এবং ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তার সাথে কথা বলতে বলে লাইন কেটে দেয়।
———————————————–
ঈদগাঁও‘র সাংবাদিক সাগরের চাচার কুলখানি সম্পন্ন
ঈদগাঁও প্রতিনিধি
তারিখঃ ২৩-০৮-১৩ ইং
দৈনিক আজকের কক্সবাজার,সাপ্তাহিক আজকের সূর্যদয়ের ঈদগাঁও প্রতিনিধি, ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা প্রেসকাবের সদস্য ও কক্সবাজার লেখক সোসাইটির সাবেক সভাপতি এম. আবুহেনা সাগরের চাচা ঈদগাঁও বাজারের ব্যবসায়ী আলম তাহেরের কুলখানি ২৩ আগষ্ট সম্পন্ন হয়েছে। এ উপলে তাঁর নিজ বাড়িতে দুপুরে খতমে কুরআন ও ভোজন অনুষ্টিত হয়। পরে মরহুমের রুহের আত্মার মাগফেরাত কামনার লে বিশেষ মোনাজাত হয়। মরহুম আলম তাহের জেলা যুবলীগের কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ও কক্সবাজার হাসেমিয়া আলিয়া মাদরাসার মুফতি এনামুল হকের বড় ভাই।
ঈদগাঁও’র গৃহবধুর মৃত্যু রহস্যে, ৬ দিনেও উদঘাটন হয়নি
এম. আবুহেনা সাগর, ঈদগাঁও
তারিখঃ ২৩-০৮-১৩ ইং
ঈদগাঁও’র দুবাই প্রবাসীর নিহত দ্বিতীয় স্ত্রীর(গৃহবধু) মৃত্যু রহস্যে,৬ দিনেও উদঘাটন হয়নি। আসলে ঘটনাটি কি আত্মহত্যা না অন্য কিছু এই নিয়ে চলছে নানা কথাবার্তা। লাশ ময়না তদন্তের পর পৈত্রিক বাড়ী পোকখালীর পার্শ্ববর্তী মিয়াজী পাড়া কবর স্থানে দাফন কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে। এমনকি ময়না তদন্ত সম্পন্নের পর স্বামী আত্মগোপনে রয়েছে বলে জানা যায়। এদিকে নিহতের তিন মাসের শিশু পুত্র সহ চার সন্তান বর্তমানে প্রথম স্ত্রীর তত্ত্বাবধানে রয়েছে বলে নানা সূত্রে প্রকাশ। জানা যায়, ১৮ই আগষ্ট সকালে ঈদগাঁও ইউনিয়নের দণি মাইজপাড়ায় এক গৃহবধুর নিহতের ঘটনা ঘটে। দুবাই প্রবাসী নুরুল আলম দীর্ঘদিন পর প্রথম স্ত্রী নিয়ে দুবাই হতে বেড়াতে আসার মাত্র এক রাতের ব্যবধানের পরদিন সকাল নয়টার পর পরই প্রকাশ হয় যে, দ্বিতীয় স্ত্রী ছফুরা আক্তার বিউটি মারা গেছে। একইদিন ১৮ আগষ্ট সকালে নিজবাড়ী থেকে লাশটি উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রকাশ, ঐদিনই সকাল সাত টার দিকে নিহত বিউটি বাসার রুটি তৈরী করছে। এমতাবস্থায় সে তার কন্যা ফাতেমাকে স্কুল যাওয়ার জন্য তৈরী হতে বলে। এসময় পিতা তাকে স্কুলে না যেতে বলে, এই নিয়ে  স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ও ঘটে। প্রথম স্ত্রী গোলবাহারের মতে, বিউটি তার কে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। কিন্তু স্থানীয় লোকজন সহ সচেতন মহল এই পর্যন্ত আত্মহত্যার বিষয়টি মেনে নিতে পারছে না। সকলের দাবী, প্রকৃত তথ্য বের করা হোক। নুরুল আলমের নিকটাত্মীয় ও ঘনিষ্ট একজন জানান, মৃত্যুর সঠিক কারণ সম্পর্কে তিনি অবগত নয়। তবে স্থানীয় এক অপর ব্যক্তির মতে, এটা নিঃসন্দেহে হত্যাকান্ড। নিহতের কন্যা ফাতেমা নূরী মায়ের দাফন কালীন নানার বাড়ীতে উল্লেখ করে তার মা কে মারধর করে হত্যা করা হয়েছে। দাফন শেষ হতে না হতেই তারাহুরা করে তাকে নিয়ে আসা হয় পিতার আশ্রয়ে। নিহতের ভাই জসিম হতভাগা কণ্ঠে বলেন, আবার বোনকে শারীরিক নির্যাতন ও তলপেটে লাথি মেরে নির্মাম ভাবে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আরও উল্লেখ করেন, ঘটনার পূর্বরাত প্রায় সাড়ে বারটা দিকে আমার মোবাইল নাম্বারের নিহত বোন বিউটির বেশ কয়েকটি কল আসে। তখন ঘুমান্ত অবস্থায় তার কল রিসিভ করার সম্ভব হয়নি। পরদিন সকালে তার মোবাইলে রিং করে কোন সাড়া না পাওয়ায় বাড়ীর পার্শ্ববর্তী আত্মীয় স্বজনের সাথে যোগাযোগ করে জানতে পারি আমার বোন মারা গেছে এবং তাকে কক্সবাজারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এব্যাপারে স্বামী নুরুল আলম আত্ম গোপনে থাকায় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। অপরদিকে তার ছোট ভাই নূর আহমদের সাথে কথা হলে তিনি জানান, মামলা ছাড়া দু’পে বসে মিমাংশা করার কথা জানান। অন্যদিকে এলাকার এক সচেতন যুবকের মতে, পত্রিকায় লিখে কি লাভ হবে, দুপে বসে মিমাংসা করে ফেলবে। এদিকে মোটা অর্থের বিনিময়ে ঘটনাটিকে আপোষ রফার প্রাণপর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে এক সূত্রে প্রকাশ। ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জের মতে, আমি কিছু বলতে পারব না এবং ঘটনার তদন্তকারী কর্মকর্তার সাথে কথা বলতে বলে লাইন কেটে দেয়।
———————————————–
ঈদগাঁও‘র সাংবাদিক সাগরের চাচার কুলখানি সম্পন্ন
ঈদগাঁও প্রতিনিধি
তারিখঃ ২৩-০৮-১৩ ইং
দৈনিক আজকের কক্সবাজার,সাপ্তাহিক আজকের সূর্যদয়ের ঈদগাঁও প্রতিনিধি, ঈদগাঁও সাংগঠনিক উপজেলা প্রেসকাবের সদস্য ও কক্সবাজার লেখক সোসাইটির সাবেক সভাপতি এম. আবুহেনা সাগরের চাচা ঈদগাঁও বাজারের ব্যবসায়ী আলম তাহেরের কুলখানি ২৩ আগষ্ট সম্পন্ন হয়েছে। এ উপলে তাঁর নিজ বাড়িতে দুপুরে খতমে কুরআন ও ভোজন অনুষ্টিত হয়। পরে মরহুমের রুহের আত্মার মাগফেরাত কামনার লে বিশেষ মোনাজাত হয়। মরহুম আলম তাহের জেলা যুবলীগের কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ও কক্সবাজার হাসেমিয়া আলিয়া মাদরাসার মুফতি এনামুল হকের বড় ভাই।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT