টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

ইয়াবার বিপরীত প্রতি মাসে ৫০ কোটি টাকার চেয়ে বেশী অর্থ মিয়ানমারে পাচার হয়ে যাচ্ছে:অর্থ পাচারকারী এরা কারা?

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ১৪০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

yaba

 

মোঃআশেক উল্লাহ ফারুকী,টেকনাফ :::: ভয়ঙ্কর মরণনেশা “ইয়াবা”র বিপরীত প্রতিমাসে টেকনাফ সীমান্ত থেকে প্রায় ৫০ কোটি বাংলা টাকা ডলার হয়ে মিয়ানমারে পাচার হয়ে যাচ্ছে। এসব টাকা পাচারের একমাত্র মাধ্যম হুন্ডি, মোবাইল ব্যাংকিং (বিকাশ) এবং ডলার। বাংলাদেশ মিয়ানমার দুদেশের সীমান্ত টেকনাফ ও মংডু কেন্দ্রিক শক্তিশালী  ইয়াবা গডফাদার চোরাকারবারী রয়েছে। সংশ্লিষ্ঠ দায়িত্বশিল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। তাদের নেতৃত্বে মাদক ও ইয়াবা গড্ফাদার চোরাকারবারী বানের স্রোতের ন্যায় আসছে বাংলাদেশের টেকনাফ সীমান্তের চিহ্নিত চোরাইপয়েন্ট দিয়ে। টেকনাফ সীমান্তের ৫টি চোরাইপয়েন্ট দিয়ে মিয়ানমার থেকে বস্তা বস্তা ইয়াবা আসছে। ৫টি চোরাইগুলো হচ্ছে, হ্নীলা ওয়াব্রাং লেদা, জাদিমুড়া, নাইথংপাড়া, নাজির পাড়া ও সাবরাং, নয়াপাড়া ঘাট। এছাড়া টেকনাফ স্থল বন্দরকে ও ইয়াবা গডফাদারেরা ব্যবহার করে আসছে। কাট বোঝাই জাহাজে এর আড়ালে ইয়াবা চালান আসার অভিযোগ থাকলে ও এ ব্যাপারে প্রশাসনের কোন নজরদারী নেই। টেকনাফ সীমান্তে ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত বেশীরভাগ রোহিঙ্গা নাগরিক এবং বাংলাদেশী নাগরিক সেজে স্থানীয় প্রভাবশালীদের সাথে আতাঁত করে স্থল বন্দর দিয়ে ইয়াবার চালান নিয়ে আসছে। অতীতে ইয়াবার চালান ট্রাকভর্তি কাঠের আড়ালে স্থল বন্দর হয়ে ঢাকা চট্টগ্রামে যাবার পথে বিজিবি হোয়াইক্যং ও মরিচ্যা চেকপোষ্ঠে জব্দ হয়। ইয়াবা ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করছেন, ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও জনপ্রতিনিধিরা। ওরা তাদেরকে নজরানা দিয়ে ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। নাফ-নদীর জিরো লাইন দিয়ে ইয়াবা হাতবদল হয়ে যায়। বাংলাদেশ মিয়ানমার দু-দেশের জেলেদের মাধ্যমে ইয়াবার চালান হাতবদল করে চলে আসে। ইয়াবার বিপরীত অর্থ হুন্ডি, মোবাইল ব্যাংকিং (বিকাশ) এবং ডলারের মাধ্যমে মিয়ানমারে পাচার হয়ে যাচ্ছে। অপর এক সূত্রে জানা গেছে, টেকনাফ পৌর এলাকা ও নাজির পাড়া ইয়াবার ডিলার কর্তৃক এসব টাকা মিয়ানমারে পাচার হয়ে যায়। উল্লেখ্য গত ২৩ সেপ্টেম্বর টেকনাফ উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে জেলা আইন শৃংখলা বিশেষ কমিটির সভায় টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ শফিক মিয়া বক্তব্যে বলেন- মিয়ানমার থেকে আসা ইয়াবার টাকাগুলো যায় কোথায়? কারা এ টাকা পাচার করে। এর সাথে জড়িত ব্যক্তিদের সনাক্ত করা প্রয়োজন। ইয়াবার বদৌলতে নাজির পাড়া, মৌলভীপাড়া, হাবিব পাড়া, কোলাল পাড়া, পুরাতন পল্লান পাড়া, নাইথংপাড়া, ইসলামবাদ, লেদায় ইয়াবা ব্যবসায়ীদের জীবন যাত্রার মান বদলে গেছে। অনেকেই বিগত সাড়ে চার বছরে হঠাৎ আংগুল ফুলে কলাগাছ পরিনত হয়েছে। আলীসান ভবন গাড়ী ও জায়গা জমির মালিক বনে গেছেন। ভবিষ্যতে এগুলো কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়াবেন। #####

– See more at: http://www.teknafnews24.com/?p=378#sthash.H932lHbx.dpuf

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT