টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
রোহিঙ্গারা কন্যাশিশুদের বোঝা মনে করে অধিকতর বন্যার ঝূঁকিপূর্ণ জেলা হচ্ছে কক্সবাজার টেকনাফে মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে ৩০ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার জমি ও ঘর হস্তান্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বারদের দায়িত্ব নিয়ে ডিসিদের চিঠি আগামীকাল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন (তালিকা) বাংলাদেশ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান টেকনাফ উপজেলা কমিটি গঠিত: সভাপতি, সালাম: সা: সম্পাদক: ইসমাইল আজ বিশ্ব শরণার্থী দিবস মিয়ানমারে ফেরা নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় রোহিঙ্গারা ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যান বন্ধের সিদ্ধান্ত: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ হাসিনা যতদিন আছে, ততদিন ক্ষমতায় আছি: হানিফ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ

আসন পর্যালোচনা: কক্সবাজার-৪, উখিয়া-টেকনাফ আসনে কে পাচ্ছেন নৌকার টিকিট

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩১ আগস্ট, ২০১৩
  • ৪৪৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

dsddasdas ইমাম খাইর, কক্সবাজার। কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে আগামীতে নৌকার টিকিট কে পাচ্ছেন? অধ্যাপক মুহাম্মদ আলী; অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, নাকি এম.পি বদি? এটি এখন সকলের কৌতুহলের বিষয়। তারা তিন জনই হেভিওয়েট প্রার্থী হওয়ায় কাউকে সহজে উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছেনা। তবে আগামী ৩ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ থেকে বিষয়টি অনেকটা খোলাসা হবে বলে মনে করছেন স্থানীয় নেতা কর্মীরা।

এদিকে কক্সবাজারের সংসদীয় আসনগুলোতে আওয়ামীলীগের একমাত্র সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদি আবারো আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়েছেন। হাট বাজার কিংবা চায়ের দোকানে আলোচনার শিরোনাম এম.পি বদি। বিশেষ করে আগামী ৩ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর কক্সবাজার আগমনকে ঘিরে আলোচনার মাত্রা বেড়েছে দ্বি-গুন।

জেলায় মহাজোট থেকে নির্বাচিত একমাত্র এ সংসদ সদস্যকে নিয়ে দলীয় হাই কমান্ড ও জাতীয় সংসদে আলোচনা উঠেছে একাধিকবার। তার নিজস্ব সংসদীয় এলাকায় নানা কারণে তার প্রতি অসন্তোষের দানা ওপেন ফিল্ডে অন-ইয়ার হচ্ছে প্রতিদিন। তাছাড়া গত কয়েক দিনে স্থানীয় ও জাতীয় বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে তাকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। এতেকরে এম.পি বদিকে নিয়ে আবারো আলোচনার ঝড় উঠেছে। সবার মুখে একটি কথা, এ আসনে আগামী দিনে কে হচ্ছেন সরকার দলীয় প্রার্থী? এম.পি বদি কি আদৌ প্রার্থী থাকছেন? নাকি মনোনয়নের লোভনীয় সেই টিকিটটি অন্যের ঘরে চলে যাচ্ছে। এটিই এখনকার আলোচনার মূল বিষয়।

 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সরকারী অনুদানের পাশাপাশি এম.পি বদি ব্যক্তিগতভাবে গরীব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নজিরও কম নয়। তিনি ব্যক্তিগত প্রচেষ্টায় অবহেলিত এলাকার উন্নয়নে সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতিমধ্যে তিনি তার সংসদীয় আসনে প্রায় ৮’শ কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড করেছেন। এর মধ্যে ব্রীজ-কালভার্ট নির্মাণে ব্যয় করেছেন ৪’শ ৫ কোটি টাকা। এছাড়াও ৫০টি বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ৭’শ এর কাছাকাছি মসজিদ-মাদরাসায় উন্নয়ন করেছেন।

এ বিষয়ে উখিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আবুল মনসুর চৌধুরী জানান, তাদের মধ্যে এখন আর কোন মতবিরোধ নেই। তৃণমূল নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে কাজ করছে।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্য হামিদুল হক চৌধুরী জানান, আওয়ামীলীগ বড় দল হিসাবে নেতাকর্মীদেরও বড় মন নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে। কোন প্রকার হিংসা, বিদ্বেষ ও বিরোধ রাখা উচিৎ হবেনা।

টেকনাফ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শফিক মিয়া জানান, অতীতে এম.পি বদির কর্মকান্ডের সমালোচনা মূখর থাকলেও প্রধানমন্ত্রীর সফরের এ মূহুর্তে পক্ষে বিপক্ষে বলতে তিনি রাজি নন। আগামীতে নেত্রী যাকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেবেন তার পক্ষে কাজ করবেন বলেও জানান তিনি।

সাবেক সংসদ সদস্য, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী বলেন, এম.পি বদি’র বিতর্কিত কর্মকান্ডের প্রতিবাদ অতীতের মতো ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে। তবে জনপ্রিয়তা বিবেচনায় দলীয় সিদ্ধান্তমতে আগামীতে যাকে মনোয়ন দেয়া হবে তার পক্ষে কাজ করতে প্রস্তুত বলে জানান সরকার দলীয় এ নেতা।

সাংসদ আব্দুর রহমান বদি জানান, ‘প্রধানমন্ত্রীর বাইরে কেউ নন। আগামী ৩ সেপ্টেম্বর কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ঘোষণা কিংবা গ্রীণ সিগন্যাল দেবেন তা আমরা মাথা পেতে নিতে বাধ্য। এর আগে কিছুই বলা যাচ্ছেনা।’

কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের অর্থ সম্পাদক রাজা শাহ আলম জানান- তিনি ও মনোনয়নের জন্য আশাবাদী। তবে দল যাকে মনোনয়ন দিবে আমরা তার পে কাজ করব।

জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এড.একে আহমদ হোসেন জানান, ‘আতীতের সকল ভেদাভেদ ভুলে আমরা এক প্লাটফর্মে এসেছি। প্রধানমন্ত্রীর আগমণ ঘিরে সকলেই এক হয়ে কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের মাঝে ভেদাভেদ বলতে কিছুই নেই।’

তিনি আরো জানান, ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একমাত্র উখিয়া-টেকনাফ আসন ছাড়া জেলার ৩টি আসনে নতুন প্রার্থী ঘোষণা আসতে পারে। এসব আসনে হাই কমান্ড থেকে যাচাই বাছাই করে যাদের প্রার্থী মনোনীত করা হবে তা আমরা মাথা পেতে নেব।’ জেলার চার আসনেই মহাজোটের জয়ের লক্ষে নিরলসভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলেও জানালেন আওয়ামীলীগের এ নেতা।’

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT