টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

আলুর দাম বাড়তি, কমেছে ছোলার দাম

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১ আগস্ট, ২০১৩
  • ১২২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

Marketsm201রমজানের শেষ দশ দিনের শুরুতে রাজধানীর খুচরা ও পাইকারি বাজারে মিশ্র পরিস্থিতি বিরাজ করছে। কোল্ডস্টোরের খরচের কারণে আলুর দাম বেড়ে গেলেও রোযার সবচেয়ে প্রয়োজনীয় খাবার ছোলার দাম কমেছে। কমেছে সব ধরনের ডালের দামও। স্থিতিশীল রয়েছে চিনি, আটা, ময়দা ও ডিমের দাম।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, নগরীর খুচরা বাজারে বর্তমানে প্রতিকেজি আলু ১৮ থেকে ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এক সপ্তাহ আগে বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি ১৫ টাকা করে। কৃষকের ঘরের মজুদকৃত ও গোলার আলু শেষ হয়ে যাওয়ায় কোল্ডস্টোরের আলুর চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বলে জানা গেছে। কারণ, কৃষকের ঘরের আলুর জন্য কোনো কোল্ডস্টোর খরচা লাগত না। অথচ সেখানে ৮৬ কেজি ওজনের এক বস্তা আলুর কোল্ডস্টোর খরচা লাগে ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা। কোল্ডস্টোর খরচা যোগ হওয়ার কারণে পাইকারি বাজারে প্রতিকেজি আলু ১২ থেকে ১৩ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

আলুর দামের উর্ধ্বগতি প্রসঙ্গে পাইকারি আলু বিক্রেতা ও বিক্রমপুর ভাণ্ডারের মালিক সবুজ মিয়া বাংলানিউজকে বলেন, ‘আলুর দাম বাড়েনি বরং কমেছে। তবে বস্তাপ্রতি কোল্ডস্টোর খরচা ৩৫০ টাকা বেড়ে যাওয়ায় আলুর দাম কিছুটা বেড়েছে। আমরা এখন যেসব আলু বিক্রি করছি সবই কোল্ডস্টোরের আলু। কৃষকের ঘরের আলু শেষ হয়ে গেছে।’

জয়পুরহাটের আরবি কোল্ডস্টোরের মালিক শঙ্কর রায় বাংলানিউজকে বলেন, ‘প্রতিবস্তা আলুর কোল্ডস্টোর ভাড়া ৩৬০ টাকা। এটা সমিতি কর্তৃক নির্ধারিত। তবে আমি প্রতি বস্তায় ৩২০ টাকা কোল্ডস্টোর খরচ নিচ্ছি। বর্তমানে আলুর দামই নেই। তাছাড়া, সারা বছরতো আর কৃষকের ঘরে আলু থাকে না, এই কারণে শেষ সময়ে আলুর দাম একটু বাড়তি মনে হবেই।”

তবে আলুর দাম বাড়লেও ছোলাসহ সব ধরণের ডালের দাম কমেছে। চকবাজারে প্রতিকেজি ছোলা বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকা দরে। অন্যান্য বাজারে বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ৫৫ থেকে ৬০ টাকা দরে। কারওয়ান বাজারে প্রতিকেজি দেশি মশুরডাল ১০৫ থেকে ১১০ টাকা, মোটা দানা মশুর ডাল প্রতিকেজি ৮৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতিকেজি খেসারি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা এবং মুগের ডাল বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ১২০ টাকা দরে।

তবে পাইকারি ও খুচরা বাজারে সব থেকে বেশি পার্থক্য দেখা গেছে কাঁচা সবজির দামে।

কাওরানবাজারের খুচরা সবজি বিক্রেতা আব্দুর রাজ্জাক প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি করছেন ৫০ টাকা দরে। এছাড়া পটল ২০ টাকা, ঢ্যাড়স ৩০, করলা ২০, শসা ২০, পেঁপে ১৫ এবং কচু বিক্রি করছেন প্রতিকেজি ২০ টাকা দরে। অথচ একই সবজি হাতির পুল কাঁচাবাজারে বিক্রি হচ্ছে দ্বিগুণ দামে।

হাতিরপুল কাঁচা বাজারের খুচরা সবজি বিক্রেতা শওকত আলী প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ ৮০ থেকে ৯০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। মাত্র এক কিলোমিটার দূরত্বের ব্যবধানে এক কেজি কাঁচা মরিচে ৪০ টাকা বেশি দাম রাখা হচ্ছে। কাঁচা মরিচসহ অন্যান্য সবজির দামও এখানে বাড়তি। প্রতিকেজি টমেটো ১১০, বেগুন ৩৫, গাজর ৪০, শসা ৩০, পেঁপে ২০ এবং পটল ২৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

তবে স্থিতিশীল আছে সয়াবিন তেলের দাম। প্রতিলিটার সয়াবিন ১২৮ থেকে ১৩০ টাকা এবং বোতলজাত সয়াবিন প্রকারভেদে ৬৩৫ থেকে ৬৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

কাওরানবাজারে সব ধরণের মাছের দামও বাড়তি। প্রতিকেজি পাঙ্গাস মাছ বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকা, কই ২২০ থেকে ২২০, মাঝারি কাতলা ২০০ থেকে ২২০, তেলাপিয়া ১৬০  এবং বড় রুই ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা দরে। এছাড়া, ৯০০ গ্রাম ওজনের একটি ইলিশ ১ হাজার টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

ঝাঁজ কমেনি পেয়াজেরও। প্রতিকেজি দেশি পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫০ টাকা দরে এবং আমদানি নির্ভর ভারতীয় পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ৪৫ ‍টাকা দরে।

অন্য দিকে সব ধরণের চালের দামও বেড়েছে। প্রতিকেজি মিনিকেট ৪২ থেকে ৪৫ টাকা, উত্তম মানের নাজিরশাইল ৫৫, পাইজাম ৩৮ থেকে ৪০ ও মোটা স্বর্ণা ৩৫ থেকে ৩৬ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

চাল দাম বাড়া প্রসঙ্গে পাইকারি চাল ব্যবসায়ী ও আল মদিনা রাইসের মালিক আলা উদ্দিন বলেন, ‘সরকার ট্রাকে ট্রাকে চাল বিক্রি করতো যা এখন বন্ধ আছে। এর ফলে আমাদের চালের চাহিদা বাড়ছে এবং কেজিপ্রতি ১ থেকে ২ টাকা করে দাম বাড়ছে।’

বেড়েছে চায়না ও দেশি আদার দাম। মহাখালি কাঁচা বাজারে প্রতিকেজি দেশি আদা ১৮০ ও চায়না আদা ১০০ থেকে ১১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে কমেছে রসুনের দাম। প্রতিকেজি চায়না রসুন ৬৫ থেকে ৭০ ও দেশি রসুন ৫৫ থেকে ৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে বাজারভেদে।

পলাশী কাঁচা বাজারে প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১৬৫ থেকে ১৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। গরুর মাংস সিটি কর্পোরেশনের বেধে দেয়া ২৭৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

তবে স্থিতিশীল আছে চিনি, আটা, ময়দা ও ডিমের দাম।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT