হটলাইন

01787-652629

E-mail: teknafnews@gmail.com

সর্বশেষ সংবাদ

ক্রীড়াবিশেষ সংবাদ

আবার ফিফা বর্ষসেরা মেসি : মেসির পুরস্কার জয়ে ইনিয়েস্তাও খুশি

টানা চতুর্থবারের মত ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জিতেছেন বার্সেলোনা ও আর্জেন্টিনার ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসি।

সোমবার রাতে সুইজারল্যান্ডের জুরিখে এক জমকালো অনুষ্ঠানে আবার ফিফা ব্যালন ডি’অর পুরস্কার হাতে নেয়া মেসি ক্লাব সতীর্থ আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা ও রিয়াল মাদ্রিদের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে পেছনে ফেলে দেন।

এই সময়ের সবচেয়ে বড় ফুটবল-তারকা পেয়েছেন ৪১.৬ শতাংশ ভোট। রোনালদো ২৩.৭ ও ইনিয়েস্তার প্রাপ্তি ১০.৯ ভোট।

এর আগে আর মাত্র দুজন ফুটবলার তিনবার ফিফা বর্ষসেরার পুরস্কার জিতেছিলেন। তারা হলেন ব্রাজিলের রোনালদো (১৯৯৬, ১৯৯৭ ও ২০০২) এবং ফ্রান্সের জিনেদিন জিদান (১৯৯৮, ২০০০ ও ২০০৩)। তবে দুজনের কেউই টানা তিনবার বর্ষসেরা হতে পারেননি।

আগে ইউরোপ সেরা ফুটবলার পেতেন ব্যালন ডি’অর পুরস্কার (ফ্রান্স ফুটবলার্স গোল্ডেন বল)। আর ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থার ছিল ফিফা বর্ষসেরা পুরস্কার। বেশ কয়েক বছর ধরে ব্যালন ডি’অর জয়ীর হাতেই উঠছিল ফিফা বর্ষসেরার পুরস্কার। ২০১০ সাল থেকে তাই ব্যালন ডি’অর ও ফিফা বর্ষসেরা পুরস্কার একীভূত হয়ে নতুন নাম হয় ফিফা ব্যালন ডি’অর।

২০১০ সালে প্রথম ও ২০১১ সালে দ্বিতীয় ফিফা ব্যালন ডি’অর জেতেন মেসি। ২০০৯ সালে আলাদাভাবে ব্যালন ডি’অর আর ফিফা বর্ষসেরার পুরস্কারও উঠেছিল তার হাতেই।

১৯৯১ সাল থেকে ফিফা বর্ষসেরা পুরস্কার ও ১৯৫৬ সাল থেকে ব্যালন ডি’অর চালু হয়।

২০১২ সাল অবিশ্বাস্য কেটেছে মেসির। বার্সেলোনা স্প্যানিশ লা লিগা ও উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিততে পারেনি। কিন্তু এক পঞ্জিকাবর্ষে জার্মানির সাবেক স্ট্রাইকার জার্ড মুলারের করা ৪০ বছরের পুরনো ৮৫ গোলের রেকর্ড ভেঙ্গে দিয়েছেন মেসি। গত বছর সব মিলিয়ে ৯১ গোল করেছেন তিনি। এর মধ্যে ৭৯টি বার্সেলোনার হয়ে আর ১২টি আর্জেন্টিনার হয়ে।
টানা ছয় বছর ধরে বর্ষসেরার সংক্ষিপ্ত তালিকায় থাকা মেসি আবার পুরস্কারটা হাতে পেয়ে উচ্ছ্বসিত। তিনি বলেন, “এটা হচ্ছে অসাধারণ এক ঘটনা। টানা চতুর্থ বারের মতো পুরস্কারটা পেলাম। এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন।”

“আমার প্রিয় ক্লাব বার্সেলোনার সতীর্থদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। ইনিয়েস্তা একজন অসাধারণ খেলোয়াড়। তার সঙ্গে অনুশীলন ও খেলা আমার জন্য বিশেষ কিছু। আর্জেন্টিনা জাতীয় দলে আমার সতীর্থদেরও ধন্যবাদ দিতে চাই,” যোগ করেন তিনি।

মেসি আরো বলেন, “আমার কোচ, আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুদের প্রতিও কৃতজ্ঞতা জানাই। আমার সন্তান ও স্ত্রীর কাছেও আমি কৃতজ্ঞ।”

মেয়েদের বর্ষসেরা ফুটবলার হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাবি ওয়ামবাখ।
স্পেনের ভিসেন্তে দেল বস্ক পুরুষ ও সুইডেনের পিয়া স্যান্ডহেজ মেয়েদের বর্ষসেরা কোচের পুরস্কার জিতেছেন। প্রেসিডেন্সিয়াল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার।

ফিফার ফেয়ার প্লে অ্যাওয়ার্ড জিতেছে উজবেকিস্তান ফুটবল ফেডারেশন।

বর্ষসেরা গোলের পুরস্কার ফিফা পুসকাস অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন তুরস্কের মিরোস্লাভ স্টচ।
ফিফা বর্ষসেরা একাদশ: ইকার ক্যাসিয়াস (গোলরক্ষক), সার্জিও র‌্যামোস, জেরার্ড পিকে, মার্সেলো, দানিয়েল আলভেস, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, জাভি, জাবি আলনসো, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, রাদামেল ফ্যালকাও ও লিওনেল মেসি।####################################################################ফিফা ব্যালন ডি’অর-এর লড়াইয়ে মেসি ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পেছনে থেকে তৃতীয় স্থান পাওয়া ইনিয়েস্তা বলেন, “এভাবে খেলতে থাকলে সে (মেসি) পঞ্চম ব্যালন ডি’অরও জিতবে। চতুর্থ বারের মতো বর্ষসেরা ফুটবলার হওয়ায় তার প্রতি আমার অভিনন্দন। সে সত্যিই অসাধারণ।”

ইনিয়েস্তা একা নন, মেসির অনন্য অর্জনে ইউক্রেনের তারকা স্ট্রাইকার আন্দ্রেই শেভচেঙ্কোও আনন্দিত। তিনি বলেন, “ফিফা বর্ষসেরার সংক্ষিপ্ত তালিকায় থাকা তিন ফুটবলারই চমৎকার। কিন্তু লিওনেল মেসি বিশেষ একজন। এক বছরে ৯১ গোল করা সত্যিই অবিশ্বাস্য। ইনিয়েস্তা আর রোনালদোও দুর্দান্ত ফুটবলার, কিন্তু মেসি অবিশ্বাস্য।”

মেসির মতো অসাধারণ ফুটবলারকে দলে পেয়ে বার্সেলোনার সভাপতি সান্দ্রো রোসেলের কণ্ঠে বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাস। তিনি বলেন, “খেলার মাঠে মেসি যে অসাধারণ, তার চারটি ব্যালন ডি’অর জয়ই তা প্রমাণ করে। একই সঙ্গে সে একজন চমৎকার মানুষও। তাকে দলে পেয়ে আমরা ভাগ্যবান।”

মেসি নিজে অবশ্য এমন অসাধারণ অর্জনের পরও নিরুত্তাপ। তার সব চিন্তা প্রিয় দল বার্সেলোনাকে ঘিরে।

তিনি বলেন, “আবারো ফিফা ব্যালন ডি’অর জিততে পেরে আমি অবশ্যই খুশি। কিন্তু পুরস্কার নিয়ে ভাবার সময় নেই আমার, সময় নেই তা উপভোগেরও। বরং আমি পরের ম্যাচ নিয়ে ভাবছি। আমি আগেও বলেছি, ফুটবল জীবন শেষ হওয়ার পরই নিজের অর্জনের দিকে ফিরে তাকাবো।”