হটলাইন

01787-652629

E-mail: teknafnews@gmail.com

সর্বশেষ সংবাদ

টেকনাফপ্রচ্ছদ

অপহৃতা জাহেদা এখনো উদ্ধার হয়নি, মামলা তুলে না নিলে প্রাণে মারার হুমকি

সাদ্দাম হোসাইন, হ্নীলা = হ্নীলায় নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের অপহৃত কিশোরী জাহেদা দীর্ঘ ২৩দিনেও উদ্ধার হয়নি। বরণ দায়েরকৃত মামলা তুলে না নিলে জাহেদাকে প্রাণে মারার অব্যাহত হুমকিতে পরিজন চরম উদ্বেগের মধ্যে রয়েছে। খোঁজ নিয়ে মামলা সুত্রে জানা যায়-গত ৯ জানুয়ারী সন্ধ্যায় নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের একটু উত্তর পার্শ্ব স্থানীয় ফার্মেসীতে ঔষুধ কিনতে আসলে নয়াপাড়া শরণার্থী ক্যাম্পের এমআরসি-৪৮৯২২,এইচ-ব্লকের শেড নং-৬৬০,রোম নং-৩ এর বাসিন্দা রশিদ আহমদের পুত্র মো: জুবাইর ও এমআরসি নং-৩৬৮০৩,শেড নং-৬৪৯,রোম নং-৫এর মো: আলী প্রকাশ কবিরের স্ত্রী ফাতেমা খাতুনসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জন মিলে একই ব্লকের এমআরসি নং-৬০০৩২,শেড নং-৬৬২ ও রোম নং-২ এর বাসিন্দা সাকের আহমদের মেয়ে জাহেদা বেগম (১৪) কে জুবাইর কথা আছে বলে পাশ্ববর্তী জায়গায় ডেকে নিয়ে আলাপ করতে থাকে। এক পর্যায়ে একটি মাইক্রোবাস এলে ৪/৫জন মিলে জোরপূর্বক গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। এই ব্যাপারে ক্যাম্প ইনচার্জকে লিখিতভাবে জানানো হলে তিনি আবেদনখানা ফরোয়ার্ড করে টেকনাফ মডেল থানায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রেরণ করেন। থানা পুলিশ কোন ধরনের পদক্ষেপ না নেওয়ায় অপহৃত কিশোরী জাহেদার ফুফু রুবাইদা বেগম বাদী হয়ে ব্রিটিশ হাইকমিশন ঢাকার প্যানেল আইনজীবি ও বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবি এডভোকেট সালাহ উদ্দিন আহমদের মাধ্যমে বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে (সিপি মামলা-১১৬/২০১৬-তারিখ-২১-০১-২০১৬ইং) আবেদন করলে বিচারক নিয়মিত মামলা হিসেবে গ্রহণের জন্য টেকনাফ মডেল থানাকে নির্দেশ প্রদান করেন। এরপরও বাদী থানা পুলিশের ভূমিকা নিয়ে আতংকে রয়েছে বলে জানান।

এই ঘটনার পর পরই অপহরণকারী চক্রের সদস্যরা এই মামলা তুলে নেওয়া না হলে অপহৃত কিশোরী জাহেদাকে খুন করে লাশ গুম করে ফেলার হুমকি দিয়ে আসছে। এতে মামলার বাদীপক্ষ চরম উদ্বেগের মধ্যে রয়েছে বলে জানান। উলে­খ্য অপহরণকারী জুবাইর একজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী, ইয়াবা গডফাদার,মানব ও নারী পাচারকারী। সে অপহরণের পূর্বে জাহেদাকে উক্তত্য করে নানা কৌশলে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে আসছে। না হলে অপহরণ পূর্বক ধর্ষণ করে নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে আসছিল বলে বাদী আর্জিতে উলে­খ করেন।

Leave a Response

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.